তথ্যপ্রযুক্তি ও টেলি খাতে বাংলাদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী চীন

china-it-53478অননিউজ ডেস্ক ।। তথ্যপ্রযুক্তি ও টেলিযোগাযোগ খাতে বাংলাদেশের অগ্রগতি আগ্রহী করে তুলেছে বিশ্বের অর্থনৈতিক পরাশক্তি চীনের বিনিয়োগকারীদের। প্রয়োজনীয় পরিবেশ ও রাজনৈতিক স্থিতিশীলতার সুযোগ নিয়ে এদেশে বড় ধরনের বিনিয়োগ করতে যাচ্ছেন তারা।

যা দেশের সাধারণ মানুষের কর্মসংস্থানের পাশাপাশি অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি অর্জনে বড়ো ভূমিকা রাখতে পারে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

পৃথিবীর দ্বিতীয় অর্থনৈতিক শক্তি চীন। যাদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বিশ্ব অর্থনীতির ১৫ শতাংশ। সভ্যতার ৫শ বছর বহনকারী দেশটির সঙ্গে গত ৪ দশক ধরেই শক্ত অর্থনৈতিক ও কূটনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে বাংলাদেশের।

এ দেশে বিদেশি বিনিয়োগের বড় একটি অংশ আসে চীন থেকে। পাকিস্তান, চীন, কাজাখিস্তানের মতো দেশে যেখানে বাড়ছে চীনের বিনিয়োগ, সেখানে ভূ-রাজনীতিতে শক্তিশালী বাংলাদেশে গত ২ বছর ধরে কমে গেছে চীনের বিনিয়োগ।

তবে এদেশের তথ্য প্রযুক্তি এবং টেলিযোগাযোগ খাত এখন আগ্রহী করে তুলেছে দেশটির বিনিয়োগকারীদের।

হ্যান্ডসেট প্রোডাক্ট লাইন হুয়াওয়ের প্রেসিডেন্ট কেভিন হো বলেন, ‘সাত বছর ধরে বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে আমার আসা যাওয়া রয়েছে। পৃথিবীর এক পঞ্চমাংশ মানুষের বাস এ অঞ্চলে। তাই বিনিয়োগের জন্য এটি একটি আদর্শ জায়গা। আমরা বিভিন্ন মাধ্যমে বিনিয়োগে আগ্রহী। ভোক্তাদের সবচে ভালো পন্যটি দেয়ার পাশাপাশি আমরা চাই একটি উন্নত সম্পর্ক তৈরি করতে, যাতে পরষ্পরই লাভবান হতে পারে।’

বিশ্বের বড়ো প্রতিষ্ঠানগুলোর অংশগ্রহণে সম্প্রতি চীনে অনুষ্ঠিত ইলেকট্রনিক্স পণ্যের সিএসই এশিয়া মেলায়ও আলোচিত হয় বাংলাদেশে বিনিয়োগের বিষয়টি। তবে এক্ষেত্রে বিনিয়োগের পরিবেশ তৈরীর ওপরও গুরুত্ব দিচ্ছেন চীনা ব্যবসায়ীরা।

চীনা ব্যবসায়ী জ্যাক বিং জিয়ান লি বলেন, ‘বিনিয়োগের জন্য পরিবেশটা সবচে গুরুত্বপূর্ণ। আপনাকে এমন একটি পরিবেশ দিতে হবে যাতে বিনিয়োগকারীরা সব কিছুতে নিরাপদ বোধ করে। বাংলাদেশের অর্থনীতি এখন বিনিয়োগের জন্য সহায়ক। শুধু চীনই নয়, বিশ্বের বিভিন্ন দেশই এদেশে বিনিয়োগে আগ্রহী।’
বর্তমানে চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের প্রায় সাড়ে ১২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার বাণিজ্যিক সম্পর্ক রয়েছে।

– সম্পাদনা/অননিউজ/এ.এইচ.রনি/২৩মে’২০১৬