যশোরে স্ত্রী হত্যার দায়ে স্বামীর ফাঁসি

image-53258যশোরের অভয়নগর উপজেলার ধোপাদী গ্রামের গৃহবধূ নাজমা বেগমকে যৌতুকের দাবিতে হত্যার দায়ে তার স্বামী রফিকুল ইসলামকে মৃত্যুদণ্ড ও এক লাখ টাকা জরিমানার আদেশ দিয়েছে আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক অমিত কুমার দে এ রায় দেন।

দণ্ডিত রফিকুল ইসলাম পলাতক রয়েছেন। তিনি ধোপদী গ্রামের শহিদ আলীর ছেলে।

সরকার পক্ষের আইনজীবী পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ইদ্রিস আলী জানান, দণ্ডিত রফিকুল ইসলাম অভয়নগর উপজেলার দক্ষিণ নওয়াপাড়ার মতিয়ার রহমানের মেয়ে নাজমা বেগমকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর থেকে এক লাখ টাকা যৌতুক দাবি করে আসছিলেন রফিকুল ইসলাম। টাকা এনে না দেয়ায় রফিকুল ইসলাম ২০০৭ সালের ২০ মে নাজমাকে মারপিট ও শ্বাসরোধে হত্যা করেন। এরপর তার মরদেহ ঝুলিয়ে আত্মহত্যার প্রচার চালানোর চেষ্টা করেন। এ ঘটনায় নাজমার বাবা হত্যার অভিযোগ এনে রফিকুল ইসলামের নামে মামলা করেন পরদিন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা অভিযোগের সত্যতা পেয়ে রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিল করেন। দীর্ঘ বিচার প্রক্রিয়া শেষে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় মঙ্গলবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বিচারক আসামি রফিকুল ইসলামকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দেন। একই সঙ্গে খুনিকে এক লাখ টাকা জরিমানাও করেন আদালত।

দণ্ডিত রফিকুল ইসলাম পলাতক থাকায় তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক।

-অননিউজ /সম্পাদনা/ জেনিফার পলি/১৭অক্টোবর ২০১৭