মৃত ব্যক্তিকে পলাতক দেখানোয় মহেশখালীর এসআইকে তলব

image-54991মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় কক্সবাজার মহেশখালীর মৃত মৌলভী আব্দুল মজিদকে পলাতক দেখানোয় সংশ্লিষ্ট থানার পুলিশের উপ-পরিদর্শক জহিরুল হককে তলব করেছে ট্রাইব্যুনাল। আগামী ২৬ নভেম্বর তাকে স্বশরীরে হাজির হতে বলা হয়েছে। একইসঙ্গে  কক্সবাজারের পুলিশ সুপার ও মহেশখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে এ বিষয়ে ব্যাখ্যা দিতে বলা হয়েছে।

সোমবার ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যর আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এ আদেশ দেয়।

আদালতে আসামিপক্ষের আইনজীবী আব্দুস সাত্তার পালোয়ান উপস্থিত ছিলেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন প্রসিকিউটর রানা দাশ গুপ্ত, প্রসিকিউটর জাহিদ ইমাম।

এর আগে গত বছরের ৮ অক্টোবর মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় কক্সবাজার মহেশখালীর বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুর রশিদ মিয়াসহ ১৯ জনের বিরুদ্ধে চূড়ান্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করে তদন্ত সংস্থা। ওই দিনই তদন্ত প্রতিবেদন প্রসিকিউটর কার্যালয়ে দাখিল করা হয়।

আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যা, নারী নির্যাতন, অগ্নিসংযোগ, ধর্মানন্তর ও দেশান্তর করাসহ মানবতাবিরোধী ১৩টি অভিযোগ আনা হয়েছে।

এই মামলার অন্য আসামিরা হলেন- মৌলভি জাকারিয়া শিকদার, রশিদ মিয়া বিএ, অলি আহমদ, জালাল উদ্দিন, মৌলভি নুরুল ইসলাম, সাইফুল ইসলাম সাবুল, মমতাজ আহম্মদ, হাবিবুর রহমান, মৌলভি আমজাদ আলী, বাদশা মিয়া, ওসমান গণি, আব্দুল শুক্কুর, মৌলভি সামসুদ্দোহা, জাকারিয়া, জিন্নাহ ওরফে জিন্নাত আলী, মৌলভি জালাল এবং আব্দুল আজিজ।

এদের মধ্যে সালামত উল্লাহ খানসহ ছয়জনকে গ্রেপ্তার করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

সানাউল হক বলেন, ট্রাইব্যুনালে যতগুলো মামলা এসেছে তার মধ্যে এটাই সবচেয়ে বড় মামলা।

-অননিউজ/সম্পাদনা/জেনিফার পলি /৩০অক্টোবর ১৭ইং